রাত ২:৫৩ সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯


কৃষিতে খরচ ও সময় বাঁচায় কৃষিযন্ত্র সিডার

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : নভেম্বর ২৭, ২০১৯ , ৭:১৭ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : কৃষি,রাজশাহীর সংবাদ
পোস্টটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ কৃষি একটি দেশ। কৃষিই হচ্ছে উন্নয়নে মুল চালিকা শক্তি। এক সময় সনাতন পদ্ধতিতে কৃষি চাষ হলেও সময়ের বিবর্তনে এর পরিবর্তন ঘটেছে। পূর্বে যেমন প্রচুর পরিমানে কৃষি শ্রমিক পাওয়া যেত। কিন্তু এখন এর পরিবর্তন ঘটেছে। কৃষি শ্রমিকরা অন্যান্য কাজের সঙ্গে যুক্ত হওয়ায় এবং কৃষি শ্রমিকদের সন্তানেরা লেখাপড়া শিখে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে এখন চাকরী করছে। ফলে কৃষি কাজে দেখা দিয়েছে শ্রমিক সংকট। এই সংকট থেকে উত্তোরনের জন্য সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন। এখন কৃষি পন্য রোপন, বপন ও মাড়াইসহ অন্যান্য কাজে যন্ত্রের ব্যবহার শুরু হয়েছে। গতকাল বুধবার সিডার নামে একটি যন্ত্রের ব্যবহার এবং রক্ষণাবেক্ষণ বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়।

Improvement and validatrion od BARI Seeder for grain crops under different cropping patterns and soil conditions প্রকল্প এফএমপি ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, গাজীপুর ও সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, বরেন্দ্র কেন্দ্র রাজশাহী এর বাস্তবায়নে, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট এর আয়োজনে এবং কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশন, ফার্মগেট ঢাকার অর্থায়নে বারি বীজবপন যন্ত্রের পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের উপর যন্ত্রচালকদের দিনব্যাপি প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহীর বিজয়নগরে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, বরেন্দ্র কেন্দ্র রাজশাহীর উর্ধ্বত বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. জগদীস চন্দ্র বর্মন। প্রধান অতিথি ছিলেন রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলিম উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, বরেন্দ্র কেন্দ্র রাজশাহীর উর্ধ্বত বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড.সাখাওয়াত হোসেন, এফএমপি ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট গাজীপুরের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ এরশাদুল হক ও আব্দুল মতিন। এছাড়াও রাজশাহী কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট এর অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথি বলেন, এই সিডার নামে যন্ত্র দিয়ে একই সাথে জমি চাষ, বীজবপন ও মই দেওয়া যায়। এই যন্ত্রের সাহায্যে ঘন্টায় ১ লিটার ডিজেল তেল খরচ করে ১বিঘা জমিতে মাত্র এক ঘন্টায় বীজবপন শেষ করা যায়। তিনি বলেন, পাওয়ার টিলার দ্বারা চালিত এই যন্ত্রের সাহায্যে ধান, গম, সরিষা, ভুট্টা ও আলুসহ নানা ধরনের বীজবপন করায় একদিকে যেমন অর্থ সাশ্রয় হয় অন্যদিকে লেবারও সমস্যা থেকে কৃষকরা বাঁচতে পারছেন। আর এ যন্ত্র ক্রয় করতে সরকার ৫০ভাগ ভূর্তকী প্রদান করছে বলে জানান তিনি। এই যন্ত্রের দাম পাওয়ার টিলার বাদে ৬৫ হাজার টাকা। আর একটি পাওয়ার টিলার ক্রয় করতে লাগে ১,২৫০০০-১,৩০,০০০/- হাজার টাকা। সম্পূর্ন নতুনভাবে এই যন্ত্র ক্রয় করে ব্যবহার ব্যয় হয় সর্বোমোট ১,৯০,০০০-১,৯৫,০০০/- টাকা মাত্র বলে জানান তিনি।

এসবি/জেআর/ইটি