রাত ১০:৫৭ বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯


এমন প্রস্তুতিতে বেড়েছে আত্মবিশ্বাস

নিউজ ডেস্ক | সাহেব-বাজার২৪.কম
আপডেট : February 23, 2019 , 10:38 pm
ক্যাটাগরি : খেলাধুলা
পোস্টটি শেয়ার করুন

সাহেব-বাজার ডেস্ক : নিউজিল্যান্ড সফরের নাম নিলেই সবার আগে চলে আসে কন্ডিশনের কথা। কিউইদের ঘরের মাঠ যে কতটা কঠিন, সেটা এরই মধ্যে টের পেয়েছে টিম বাংলাদেশ। ক্রিকেটবোদ্ধারা বলছেন, একদিনের ক্রিকেটে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পেছনে অন্যতম কারণ ছিল নিউজিল্যান্ড কন্ডিশন!

তীব্র বাতাস, সেই সঙ্গে পেসারদের গতি আর বাউন্সে রীতিমতো লণ্ডভণ্ড হয়েছিল বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন। সেই ক্ষত কাটিয়ে অন্তত টেস্টে কিছুটা হলেও ভালো করার প্রত্যয়। শনিবার অবশ্য তার এক ঝলক দেখা গেল লিংকনের প্রস্তুতিতে। সাদা পোশাক গায়ে মূল মঞ্চে নামার আগে অনুশীলনটা বলে দিচ্ছে ওয়ানডের হতাশা কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য কতটা মরিয়া বাংলাদেশ।

দু’দিনের প্রস্তুতির প্রথম দিনেই ৬ উইকেটে ৪১১ রান সংগ্রহ করেছে অতিথিরা। হোক কাগজে-কলমে ওয়ার্মআপ ম্যাচ, তবু স্বস্তি আর আত্মবিশ্বাসের জ্বালানিটা যদি পাওয়া যায়।

ম্যাচের পর ওপেনার সাদমান ইসলামের কণ্ঠে তেমন সুরই শোনা গেল, ‘আজকে ব্যাটিংয়ে ভালো আত্মবিশ্বাস এসেছে। কীভাবে এখানে খেলতে পারবো তা বুঝতে পেরেছি। উইকেট সম্পর্কে ধারণা পেয়েছি। দলের সবাই ভালো করেছে। দ্রুতগতির বোলারদের বিপক্ষে রানও পেয়েছে। যেভাবে আজকে ব্যাটিং করেছি, মূল ম্যাচে সেভাবে করতে পারলে আশা করি অনেক বড় একটা স্কোর ওদের সামনে দাঁড় করাতে পারবো।’

যদিও এই প্রস্তুতি ম্যাচে কিছুটা কৌশল বদলাতে দেখা যায় নিউজিল্যান্ডকে। ওয়ানডে সিরিজের মতো পেস-সংবলিত একাদশ নামায়নি তারা। স্পিন-নির্ভর দল গড়েছে, তবে পেসারও ছিল আক্রমণে। আর সর্বোচ্চ দুটি উইকেট শিকার করা কিউই বোলার ব্লেকি পিটারও কিন্তু স্পিনার। তার পরও আশাবাদী হওয়া স্বাভাবিক। কারণ ওয়ানডেতে যেভাবে ব্যাট চালাতে দেখা যায় তামিম-লিটনদের, শনিবার ছিল তার উল্টো রূপ। মোটামুটি সবাই কমবেশি রান পেয়েছেন। টপ অর্ডারের সঙ্গে মিডল অর্ডারও ছিল সচল।

বৃহস্পতিবার থেকে হ্যামিল্টনে শুরু হবে তিন টেস্টের প্রথমটি। সেখানকার কন্ডিশনেও পরীক্ষা দিতে হবে বাংলাদেশকে। তবে লিংকনের প্রস্তুতিতে নামার আগে বাংলাদেশ দল সেদিক মাথায় নিয়েই নেমেছিল। তাতে বলা যায় অনেকখানি সফল। প্রস্তুতিতে বাতাসের বাধা টপকেই দারুণ একটা সংগ্রহ উপহার দিয়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। সাদমানও এমনটা মনে করিয়ে দিয়েছেন, ‘এখানে আসার পর থেকে ম্যাচের সবশেষ অনুশীলনে বেশ বাতাস ছিল। আমাদের প্রতি নির্দেশনা ছিল, ওয়েলিংটন আর হ্যামিল্টনে খেলতে হলে এমন বাতাসে খাপ খাওয়াতে হবে। সেদিক চিন্তা করেই আমরা মাঠে নামি।’

গত বছরের শেষ দিকে টেস্ট অভিষেক হয়েছিল সাদমানের। প্রথম ম্যাচেই ব্যাট হাতে আলো ছড়ান তিনি। ওপেনিংয়ে নেমে টেস্ট মেজাজে রানের চাকা ঘুরিয়ে যান। ১৯৯ বলে যোগ করেন ৭৬। সে ম্যাচের পর এবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ডাক পাওয়া সাদমান প্রস্তুতিতেও নৈপুণ্য দেখালেন। দেখেশুনে বলের গুণাগুণ বিচার করে বেশ ধীরস্থির ব্যাটিং করতেই দেখা গেল তাকে। ১১৩ বলে করেন ৬৭ রান।

এসবি/এআইআর